‘বউ ফেরত চাই’ পোস্টার লাগিয়ে শ্বশুরবাড়ির সামনে অবস্থান

পেশায় রাজমিস্ত্রি হরিদাসের দাবি, চার বছর আগে কাঁঠামবাড়ি এলাকার বাসিন্দা জ্যোৎস্না মণ্ডলের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তাদের দেড় বছরের একটি মেয়েও রয়েছে। প্রথমে সবকিছু ঠিকঠাক ছিল। কিন্তু এক বছরেরও বেশি সময় ধরে বিশ্বজুড়ে চলছে অস্থিরতা। শ্বশুর বাড়ির ইন্ধনে তার ও জ্যোৎস্নার সংসারে অশান্তি শুরু হয়। এরপর তার স্ত্রী মেয়েকে নিয়ে বাপের বাড়ি চলে যায়। এখন শ্বশুর বাড়ির চাপে মেয়েকে নিয়ে বাড়ি ফিরছেন না স্ত্রী।

বারবার স্ত্রী-সন্তান উদ্ধারের চেষ্টা করেও খালি হাতে ফিরতে হয় তাকে। তাই বাধ্য হয়ে নিজের গায়ে পোস্টার লাগিয়ে শ্বশুর বাড়ির সামনে অবস্থান নেন। হরিদাস আরও বলেছেন যে তিনি তার স্ত্রী ও সন্তানদের ফিরে না পাওয়া পর্যন্ত তিনি তার অবস্থানে থাকবেন। যুবক বলেছে সে এর জন্য প্রাণ দিতে রাজি। হরিদাসকে তার মেয়ের ছবি হাতে, শরীরে ‘স্ত্রী প্রত্যাবর্তন’ পোস্টার নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখতে ভিড় জমায় এলাকায়।

এদিকে স্ত্রী জ্যোৎস্না স্বামীর অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলেন, তার স্বামী তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে। সেজন্য বাবার বাড়িতে এসেছেন। এটা তার বাবা-মায়ের দোষ নয়। জোৎস্না জানান, তিনি স্বামীর বাড়িতে ফিরতে চান না। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রচণ্ড ঠান্ডায় মধ্যরাত পর্যন্ত একই স্থানে অবস্থান করেন হরিদাস। পরে পুলিশ ও স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যদের আশ্বাসে গভীর রাতে হরিদাস মণ্ডল অবস্থান নেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: