ফরিদপুরে সিজার করলেন নার্স, গুরুতর আহত নবজাতক

ফরিদপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞবিহীন আয়া ও নার্সের হাতে সিজারিয়ান করা এক নবজাতক গুরুতর আহত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার (১৫ জানুয়ারি) সকাল ৮টার দিকে প্রসব ব্যথা নিয়ে ফরিদপুর মেডিকেল হাসপাতালের বিপরীতে আল-মদিনা বেসরকারি হাসপাতালে এক রোগী ভর্তি হন। শিশুটিকে বের করে নিয়ে গিয়ে দেখা যায়, তার কপালে ৯টি সেলাই রয়েছে এবং শিশুটি গুরুতর অসুস্থ।

এ ঘটনায় ক্লিনিকের মালিক জাকারিয়া মোল্লা পলাশ ও আয়া চায়না বেগমকে আটক করেছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। নিহত রুপা বেগম (২০) রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ থানার উজানচর ইউনিয়নের মাইজদ্দিন মন্ডল পাড়া গ্রামের শফিক খানের স্ত্রী।

নিহতের পরিবার জানায়, আল-মদিনা বেসরকারি হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ বিষয়টি আড়াল করার চেষ্টা করলে রুপার পরিবার প্রশাসনকে জানায়। এ সময় পুলিশ এসে হাসপাতালের মালিক ও আয়াকে আটক করে।

এদিকে ফরিদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাসুদুল আলম জানান, বিষয়টি শুনে আমি হাসপাতাল পরিদর্শন করেছি। স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ছাড়া সিজারিয়ান অপারেশন ও গর্ভবতী মায়ের কপাল কেটে নেওয়ার অভিযোগে হাসপাতালের মালিক পলাশ ও আয়া চায়না নামের এক কর্মজীবীকে গ্রেপ্তার করেছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: